মানহানির মামলা

একটা শিয়াল হুয়া হুয়া করে বলে উঠল "আসামী শীলা মিত্র হাজির হন"।
বলতে, কয়েকটা বানর শীলাকে টানতে টানতে কাঠগড়ায় দাঁড় করায়।
বিচারকের আসনে চোখে চশমা এঁটে সিংহ মহারাজ বললেন "আপনার কোনও উকিল আছে?"
শীলা তো কিছুই মাথা মুণ্ডু বুঝতে পারছেনা, হাঁ করে তাকিয়ে আছে। কিসের বিচার, আর এতো সব প্রাণীই বা কেন জড়ো হয়েছে?
ওদিক থেকে কালো কোট গায়ে একটা বলদ বলে উঠলো "আমি আছি মহারাজ"
দর্শকদের আসন থেকে একটা ভল্লুক টিপ্পনী করল "তুমি তো থাকবেই চাঁদ, তোমার স্ত্রীকে গোমাতা গোমাতা করে যে"
একটা টিয়া পাখি ক্যাঁচ ক্যাঁচ করে বলে উঠল "তাতে কি, তাহলে তো উনি বলদ দাদার সতমেয়ে হবেন। সতমেয়ের প্রতি এতো দরদ কেন?"
একটা মোষ ভোঁস ভোঁস করে বলে উঠলো "আরে দেখিস না, কেউ বেশী খাটা-খাটনি করলেই উনি বলেন 'কলুর বলদ'। আমরা যেন পরিশ্রম করিনা, এমনি এমনি বসিয়ে খাওয়ায়!"
সিংহ সিংহনাদে গর্জে উঠলেন "অর্ডার অর্ডার! সবাই চুপ, নইলে এখনই সব কেস ডিসমিস করে দেওয়া হবে"

পুরো সভাটি একদম চুপ মেরে গেলো।

সরকারি পক্ষের উকিল শেয়াল, চোখের চশমাটি একটু নিচু করে নাকের উপর নামিয়ে দিয়ে চশমার ফাঁক থেকে শীলার দিকে তাকিয়ে, কোটের পকেট থেকে ছোট একটা বই বের করে বলল "PETA"র উপর হাত রেখে বলুন, যা বলবেন সত্য বলিবেন, সত্য বই মিথ্যা বলিবেন না"
ওমনি দর্শক রা তারস্বরে বলে উঠলো "ওনাকে বলতে দেবেন না, একে টিভি এঙ্কর তার উপর মেয়ে, একবার মুখ খুললে আর বন্ধ হবেনা"
সিংহ আবার গর্জে উঠলেন "অর্ডার অর্ডার! উকিল সাহেব, আপনি নিজের কথা বলুন, টিভি এঙ্কর কখনো সত্য বলেন না। সাংবাদিকরা যদি সত্যি কথা বলে, তবে ওনাদের চ্যানেল চলবে কি করে!"
শেয়াল ওমনি বলে উঠলো "মাই লর্ড, আমার মক্কেলরা এনার নামে ৬৯০ খানা মান হানির মামলা দাখিল করেছেন।"
সিংহ বললেন "ঠিক আছে, শুরু করুন"
শেয়াল বলল "মহারাজ উনি জখন ৭ বছরের ছিলেন, তখন ওনার ভাই ওনার হাতে কামড়ায়, তখন উনি বলেছিলেন ইঁদুরের মতো কামড়ায়। অথচ আমার মক্কেল ইঁদুর বলছেন উনি এখনো কোনোদিন ওনাকে কামড়ান নি, তাহলে উনি কি করে জানলেন, আমার মক্কেল কি ভাবে কামড়ান? সেই থেকে ওনার পশু-বিদ্বেষ শুরু"
সিংহ "এতো পুরানো ছোট খাট কেশ নিয়ে আলোচনা না করে একটু নতুন কেশে আসুন"
শেয়াল - "মহারাজ উনি ১৪ বছর বয়সে নিজের এক বন্ধুকে বলেছিলেন পেঁচীর মতো দেখতে, কিন্তু আমার মক্কেল যথেষ্ট সুন্দরী, ওই দেখুন"
গাছের ডালে বসা এক সাদা রঙের প্যাঁচানীর দিকে দেখিয়ে দিল। প্যাঁচানী মাথা ঘুরিয়ে ঘারিয়ে, বিয়ের পাত্রীর মতো এদিক ওদিক ঘাড় ঘুরিয়ে দেখাতে লাগল।
বলদ বলে উঠলো "মহারাজ আমার মক্কেল ওনার কথা বলেননি, উনি তো কালপেঁচার কথা বলেছেন"
শেয়াল "কিন্তু উনি তো সেটা উল্লেখ করেন নি, জেনারালাইজড করেছেন।"
সিংহ "একটু সংক্ষেপে বলুন, এতো শুনতে গেলে আমার আজ খাওয়া হবে না"
শেয়াল " মহারাজ, উনি মানুষ কে তুলনা করার জন্য সব সময় আমাদের ব্যাবহার করেছেন, কেউ গাছে ঝুললে বাদুড়, কেউ নকল করলে বানর, বোকাদের গাধা, কেউ কাঁদার অভিনয় করলে কুমীর, একটু রোগা হলে ফড়িং, একটু মোটা হলে হাতি"
দর্শকের আসন থেকে হাতি বলে উঠলো "মহারাজ আমি নিয়মিত ১৫-২০ মাইল হাঁটি, আর সব সময় হাই-ফাইবার খাওয়ার খাই, আমার জিন এরকম হলে আমি কি করবো?"
তখন কোলা ব্যাং ঘ্যাঙর ঘ্যাঙ করে বলে উঠলো "মহারাজ আমার কোনদিন সর্দি হয়নি, তাও বলে ব্যাং এর সর্দি। এই দেখুন .." বলে নাক উঁচিয়ে হন্স হন্স করে নিশ্বাস ছেড়ে দেখাল।
তখন একটা কচ্ছপ পোঁ পোঁ করে দৌড়ে এসে বলল "মহারাজ দেখুন আমি কত জোরে দৌড়াই"
একটা কাক গাছের ডালে বসে ক্যা ক্যা করে গান শুরু করছিল, সিংহ গর্জে উঠলো "অর্ডার অর্ডার! সবাই যদি নিজেদের কথা বলবেন তবে উকিল রেখেছেন কি করতে?"
আবার সবাই চুপচাপ ।
শিয়াল শুরু করল "মহারাজ, ইদানীং কতকগুলো লোক কোন মেয়ের সম্মানে হানি করায় উনি বলেছেন জানোয়ার। সে তো সব প্রাণীদের এক সঙ্গে অপমান, মহারাজ। অন্যের দোষ সব সময় আমাদের ঘাড়ে! আবার বলেছেন নেকড়ের থাবা। আমার মক্কেল কোনদিন নিজের স্ত্রী ছাড়া অন্য মেয়েকে ছুঁয়ে দেখে না। এটা তো খুব বড় অপবাদ মহারাজ। কোথাও বলেছেন শিয়াল কুকুরে ছিঁড়ে ছিঁড়ে খাবে। মহারাজ আমার মক্কেল কুকুর, খুব প্রভু ভক্ত। আর আমি নিজে কোনদিন মানুষ খাইনি। হাঁস মুরগি খাই , কিন্তু সে তো মানুষ ও হাঁস মুরগি খায়, আরও অনেক কিছু খায়। আমরা খেলে কি দোষ। আমরা ... "
সিংহ শেয়াল এর কথা থামিয়ে বলল "আবার খাওয়ার কথা মনে করিয়ে দিলে, একে খিদে পেয়েছে, দাঁড়াও তোমরা। আগে কাউকে একটা খাওয়া যাক"। বলে যেই না বিচারের আসন থেকে উঠেছে, ওমনি সবাই চারদিকে ক্যাঁচর ম্যাচর করে যে যার মতো দৌড়...
শীলা বাঁধা আছে দৌড়াতে পারছেনা। ঘামে ঘাম।
একটা সাপ কোথা থেকে এসে বলে "বড্ড বলিস আস্তিনের সাপ" বলে শীলার কানে লেজ ঢুকিয়ে সুড়সুড়ি দিচ্ছে। শীলার গায়ে কাঁটা দিয়ে ওঠে। ধড়ফড় করে উঠে পড়ে দেখে তার ৭ বছরের ছেলে গামছার কোনা সরু করে পাকিয়ে তার কানে ঢোকাচ্ছে। তাকে ওই ভাবে উঠতে দেখে খিলখিলয়ে হেসে বলছে "কাল দুপুরে তুমি বড্ড আমার কানে সুরসুডি দিয়ে ঘুম ভাঙিয়েছ। কেমন মজা? হা হা হা"
"এই দুষ্টু, আমিতো তোর কান পরিষ্কার করে দিচ্ছিলাম! দাঁড়া দেখাচ্ছি মজা"
ছেলে পোঁ পোঁ করে দৌড়...

bengali@pratilipi.com
080 41710149
সোশাল মিডিয়াতে আমাদের ফলো করুন
     

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সাথে কাজ করুন
গোপনীয়তা নীতি
পরিষেবার শর্ত
© 2017 Nasadiya Tech. Pvt. Ltd.