একটা পুজো হোক এমন যখন প্যান্ডেল ভাসবে রেট্রোস্পেক্টিভে। সকালে "এতো যে তোমাকে ভালোবেসেছি"র মানবেন্দ্র তুলতুলে রসগোল্লা। দুপুরে "তুমিসুন্দর তাই, চেয়ে চেয়ে দেখি"র সতীনাথ রসালো রাবড়ি। বিকেলে "এই পথ যদি না শেষ হয়"এর হেমন্ত স্বচ্ছন্দ প্রবাহমান ছানারপায়েস। সারারাত তারপর মাথায় হাত বোলানো ঘুম।

একটা পুজো হোক এমন যখন বোনাসের জন্য পুজো নয়, পুজোর জন্য পুজো হবে।

একটা পুজো হোক এমন

যেদিন"এটা দাও সেটা দাও" এর ঘ্যানঘ্যানানির বদলে স্ত্রী স্বামীকে পুজোর গিফট কিনতে নিয়ে যাবে, আর জিজ্ঞেস করবে,"বলো কিচাও, এবারের পুজোতে আমিই। সারপ্রাইস …… পরের বার না হয় তুমি।"

একটা পুজো হোক এমন

যখন আলাদা করে চেনাই যাবে না কে বাঙাল, কে ঘটি। অষ্টমীর দিন "বাঙালি ঘটি" প্রতিযোগিতায় বাঙাল লড়বে ঘটির হয়ে আর ঘটিবাঙালের। প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্য আসলে হবে পুরোনো বিভিন্ন খাবারের নাম মনে পড়ানো। খাবার নিয়ে আলোচনাতেও বাঙালিদেরগলা ভেজে। মন ভেজে। আত্মা ভেজে।

একটা পুজো হোক এমন

যখন সবাই সাজবে-গুজবে-হাসবে-খেলবে অপরের জন্য নয়, নিজের জন্য। ফর্সা হওয়ার ক্রীমের দরকার হবে না। আসল রংটাই পাকাসোনা হয়ে উঠবে। ব্যাংক ব্যালেন্স আর মাইনের হিসেব দিতে হবে না তাকে "হ্যা" বলানোর জন্য। ব্যক্তিত্বটাই হৃদয়ে প্রবেশের টিকিটহয়ে উঠবে।

একটা পুজো হোক এমন

যখন মেয়েরা রাস্তায় হোল নাইট ঠাকুর দেখবে। পাড়ায় পাড়ায় ছেলেরা সব খেয়াল রাখবে, প্যান্ডেলে স্বাগত জানাবে। ভালো লাগলেকাঁপা গলায় ফোন নাম্বার চেয়ে বসবে। যৌন ভাবনা, বিকৃতির জন্ম দেবে না। মান আর হুঁশ থাকবে আয়ত্তে। মেয়েটির ছোট জামা দিয়েমেয়েটির দাম পরিমাপ করা হবে না। মেয়ে হয়ে জন্মানোটা আর পাপ বলে মনে হবে না।

একটা পুজো হোক এমন

যখন দু নম্বর কম পাওয়ার জন্য সারা পুজোতে কাউকে গুম হয়ে বসে থাকতে হবে না। "সুইসাইড নোটে বানান ভুলের ভয় পাওয়া" কাউকে দশমীর দিন ছোট ছোট পায়ে পাঁচতলা থেকে ঝাঁপানোর প্ল্যান কষতে হবে না।

একটা পুজো হোক এমন

যখন নবমীর বিকেলের বিশেষ অতিথি হিসেবে ডেকে আনা হবে বস্তির ছেলেমেয়েগুলিকে। রীতিমতো অনুশীলন করে আসবে তারা।এলোমেলো সুরের প্রাণখোলা উদ্বোধনী সঙ্গীতে শুরু হবে অনুষ্ঠান। সব্বাই মিলে হাতে হাত ধরে মন ভরানো নাচ করবে। ওই ছোট্টটিআদো আদো কবিতা বলবে। আটকাবে মাঝে-মধ্যে। পাড়ার ওই মস্ত বাড়ির ছেলেটা মঞ্চের নিচ থেকে প্রম্প্ট করে আপ্রাণ চেষ্টা করবেআটকে যাওয়া লাইনগুলো যেন সম্পূর্ণ করে ছোট্টটি নামতে পারে স্টেজ থেকে। হাততালির আওয়াজ পৌঁছে যাবে দূর জঙ্গলে,যেখানে বোমা বাঁধছে ওই বস্তিরই কিছু যুবক। বোমা বাঁধতে গিয়ে যেন সব গুলিয়ে যাবে, বাড়ির ফেরার জন্য মন খারাপ করবে। ছুট্টেচলে আসবে মায়ের কোলে, তখুনি, সব ফেলে। বোকা মা ছেলেকে পেয়ে বুকে জড়িয়ে ধরে শুধুই কেঁদে ভাসাবে।


==================

bengali@pratilipi.com
080 41710149
সোশাল মিডিয়াতে আমাদের ফলো করুন
     

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সাথে কাজ করুন
গোপনীয়তা নীতি
পরিষেবার শর্ত
© 2017 Nasadiya Tech. Pvt. Ltd.