“সুশান্তদা আমায় একটা কথা বল, শহুরে কুল ছেলে দেখাতে সব সময় কেন সাউথ পয়েন্টে পরে দেখানো হয়? হাওড়া জিলা বা সালকিয়া হিন্দু হাই স্কুল কেন দেখানো হয় না?”

এই রে। আবার বাজে বকা শুরু করেছে ওমিটা। সুশান্ত দা বলল, “ এই রে এটা তো ভেবে দেখিনি। হয়ত হাওড়া জিলার কেউ মুভি বানায় নি তাই। তুই করবি তো, তখন দেখাবি না হয়। ”

“ আলবাত দেখাবো। এই শর্মার সামনে সাউথ পয়েন্ট ধোপে টেকে নি। সাউথ পয়েন্টের নাকের সামনে দিয়ে আমি মীরাকে আমার গার্র্লফ্রেন্ড করেছিলাম, কেন যে সব ভেস্তে গেল।”

বলেই ফুঁপিয়ে কান্না ধরল আবার। প্রথমেই বলে রাখি আমার কিম্বা ওমির কারোরই সাউথ পয়েন্টের সাথে ব্যক্তিগত শত্রুতা নেই, আর সুশান্ত দা নিজেই তো সাউথ পয়েন্টের ছাত্র ছিল এক কালে। আর ওমির অন্যতম প্রিয় বন্ধু রুপো সাউথ পয়েন্টের ছাত্র। কিন্তু সম্প্রতি ওমির গার্লফ্রেন্ড ব্রেকআপ করার পর ওমির কেমন যেন একটা সন্দেহ হচ্ছে যে সাউথ পয়েন্টের একটি ছাত্র কামেশ্বরের সাথে কিছু একটা চলছে এবং তবে থেকে ওমি যেন কেমন একটা হয়ে গেছে।

সুশান্ত বলল "আর খাস না ভাই ওমি, বন্ধ কর”।

ঠিক সেই মুহূর্তে পিছন পাড়া থেকে তারস্বরে গান বেজে উঠল “ আভি জিন্দা হু তো জি লে নে দো, ভারী বারসাত মে পি লেনে দো...”

ওমি বোতল হাতে ব্যাল্কানি তে দৌড়ে গেল, আর নাচতে শুরু করল। “ দেখছ সুশান্তদা সবাই জানে আজ আমি খাচ্ছি। সবাই আমাকে খেতে বলছে, জোরে দে আরও গানটা ...”

কোন রকমে ঘরে নিয়ে এল ওমিকে। “ ভাই আমার বাবা মা নেই আজ বাড়িতে টা বলে পাড়া পড়শি নেই তা তো নয়।”

“ সুশান্তদা!!!! আজ তোমার ভাইএর ডিভোর্স হয়েছে আর তুমি কিনা পাড়া পড়শি নিয়ে ভাবছ??? শেষে আমায় এমন দিনও দেখতে হল?? আমি এক্ষুনি সুই সাইড করতে চাই। বাট করতে পারব না। বলত কেন?”

নেশা একেবারে চরমে যাকে বলে। কথা বলছে আর ততাধিক ঘাড় মাথা নাড়ছে। সাথে চোখের কোণে জল আর ঠোঁটের কোণে হাঁসি।

কিছুটা বিরক্তি লোকাবার আপ্রাণ চেষ্টা করে, সুশান্তদা বলল- “ কেন?”

“কারণ আই ডোন্ট ওয়ানা ডাই অ্যাস আ ভার্জিন। স্বর্গে যদি সব প্লেটনিক হয়!! আর যদি বলে মর্তে এই কারণেই তো পাঠানো হয়েছিল, এতদিনে যদি ওখানে কিছু কর নি তো এখন আগে পাপের ফল ভোগ কর তারপর পরের চান্স পাবে। আমি তো তাহলে শেষ, তাই না??”

পাশ থেকে মন্টে বলল, “ ভাই আমি তো শুনেছি যে যে খুচরো পাপ আমরা করি তার নাকি একটা লিমিট বাঁধা আছে, মানে সপ্তাহে চারবার। এর থেকে বেশি হলে নাকি নরকের রাস্তা পাক্কা, আর যদি লাইফ টাইমে ১০০০০ এর মাইল ফলক ক্রস করে ফেলিস তাহলে তেলে চুবিয়ে মারে। তুই ভাই কতবার করিস?”

“ আচ্ছা তেল কি খুব গরম নাকিরে? ”

“ মানে তুই কি মাইল ফলক ক্রস করে ফেলেছিস নাকি?”

“ সেকি আর গুনে দেখেছি। তবে ১০০০০ বড্ড কম রে। এত যে কেউ পার করে দেবে। গরম তেলে ভাজবে নাকি জাস্ট চুবিয়ে ছেড়ে দেবে?”

“ সেটা ডিপেন্ড করছে তোর স্কোরের ওপর। ১০০০ থেকে যত বেশি সেটা থেকে লোয়ার লিমিট বিয়োগ করে তাকে ...”

মন্টে তার ফরমুলা বলতে যাচ্ছিল। সুশান্তদা বাজখাই গলায় তাকে থামাল। -“ তুমি থাম। অনেক হয়েছে, যত সব। খুচরো পাপ!! মাস্টারবেসান বলনা বাপু। করতে যখন পারো বলতে কি সোনা বাবু তোমার রূপ খোসে যায়?”

তারপর ওমির দিকে তাকিয়ে- “ আর এই যে শোন তোর কি মাথা গেল? মাস্টারবেসান একটা ন্যাচারাল জিনিস। একটা মেয়ে ছেড়ে গেছে বলে কি বুদ্ধি শুদ্ধি সব ওএলএক্সে বেচে দিলি নাকি??”

বলতেই ওমির চোখ ছলছল করে উঠল। কাঁদো কাঁদো গলায় সুশান্তদার দিকে তাকিয়ে বলল, - “ সুশান্তদা?? এটা তুমি বলতে পারলে? ও জাস্ট একটা মেয়ে ??? ও শুধু একটা মেয়ে না, আমার সব থেকে প্রিয় বন্ধু, আমার সেকেন্ড মম, আমার লেট নাইট কো আউল, আর তুমি কিনা!!!!”

bengali@pratilipi.com
080 41710149
সোশাল মিডিয়াতে আমাদের ফলো করুন
     

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সাথে কাজ করুন
গোপনীয়তা নীতি
পরিষেবার শর্ত
© 2017 Nasadiya Tech. Pvt. Ltd.