চিঠি

স্নেহের ধন (সোনা),

আমার সারাদিনের একাকিত্বের মাঝে তুই-ই তো হলি আমার এক মাত্র স্বপ্ন। যাকে নিয়ে আমি কত মুহূর্ত উপভোগ করি। কখনও তোকে কাছে পাওয়ার উল্লাস আবার কখনও তোকে না ছুঁতে পাওয়ার বেদনা। আচ্ছা আমি কি মা হিসেবে খুব পচা? তুই কেন মাকে ধরা দিতে আসিস না সোনা? জানিস, প্রায় রাতে তোকে স্বপ্নে দেখি। তোর ছোট্ট দুটো হাত প্রসারিত করে, তুই আমার দিকে তাকিয়ে খিল্ খিল্ করে হাসিস। আমি যখন ছুট্টে তোর কাছে যেতে চাই, ঠিক তখনই তুই ধীরে ধীরে কোথায় যেন মিলিয়ে যাস। আমি হাজার চেষ্টা করেও তোকে কিছুতেই ছুঁতে পারিনা। মায়ের সাথে লুকোচুরি খেলতে কি খুব ভালো লাগে তোর? তুই প্লিজ আমার কাছে আয়! তোকে কথা দিচ্ছি, আমি তোর সাথে রোজ লুকোচুরি খেলব। তোর হাজারও দুষ্টুমির সঙ্গী হব আমি। আর তোর সব বায়না গুলো মেটাতে পেরে যখন আমার মন প্রশান্তিতে ভরে যাবে, তখন তোকে এত বছর না পাওয়ার সব যন্ত্রণা ভুলে যাব রে। তুই শুধু একটি বার আমার কাছে আয় সোনা!

জানিস, তোকে ছাড়া আমার যেন নিজের কোনো অস্তিত্ব-ই নেই। আমি প্রতিটা রাত জেগে বসে থাকি তোকে স্পর্শ করার জন্য। তবে আমি এখনও আমার আশা ছাড়িনি। জানি তুই ঠিক আসবি। মায়ের এই কাতর আহ্বানে সাড়া না দিয়ে তুই কিছুতেই থাকতে পারবি না। জানিস, সেদিন তোর এক বম্মা আমায় বলল - তুই নাকি আমার সাধনার ধন। তাই তোর আসতে এত দেরি হচ্ছে। সত্যি-ই তো তোকে পাওয়ার জন্য কত সাধনা করতে হচ্ছে আমাকে। এমন কিছু পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে যা আমার জীবনে অকল্পনীয়। বিশ্বাস কর, তোকে পেলে আমি সব কষ্ট ভুলে যাব। আমি আ... র কাঁদব না।তোর দিকে তাকিয়ে শুধুই হাসব। আর যদি কোনো কারণে কষ্ট পেয়ে কেঁদেও ফেলি, তুই তোর ছোট্ট দুটো হাত দিয়ে আমার চোখের জল মুছিয়ে দিবি না? অনেক অনেক কিছু বলতে ইচ্ছা করছে, কিন্তু সবটা বলে উঠতে পারলাম না। তবে তোকে নিয়ে আমি একটা কবিতা লিখেছি, যা খুব যত্ন করে লিখে রাখলাম এই চিঠির মধ্যে। যখন আমার সোনা বড় হবে, 'মা' কথাটির অর্থ বুঝতে পারবে তখন নিশ্চয়ই সে মায়ের সকল অনুভূতি গুলিকে অনুভব করতে পারবে।


"তুই কবে আসবি আমার কাছে?
তোকে নিয়ে কত স্বপ্ন, কত কল্পনা
তুই কি সেই স্বপ্নকে সত্যি করবি না?
তোকে পাওয়ার জন্য আমি অপেক্ষা করি সকাল থেকে রাত,
কবে স্পর্শ করবি দিয়ে ছোট্ট দুটি হাত?
তোর ছোঁয়ায় আমি হব পরিণত নারী,
মা হওয়ার আনন্দে দেব সুখের দেশে পাড়ি।
আদো আদো গলায় যখন ডাকবি প্রথম 'মা'
আনন্দে তোকে জড়িয়ে ধরব কিছুতেই ছাড়ব না।
আজ আমি বুঝেছি তোকে ছাড়া আমার জীবন শূন্য
তুই এসে করেদে আমার জীবনকে পূর্ণ।
তোর জন্য সইতে পারি সকল যন্ত্রণা,
তুই আমার বেঁচে থাকার একমাত্র প্রেরণা।
যখন আমি থাকব না আর এই পৃথিবীর বুকে
তোকে আমি রেখে যাব আমার প্রতিচ্ছবি রূপে।"


আমার লেখা এই চিঠিটা আমি আমার স্নেহের ধনের জন্য লিখে রাখলাম। না, তা কোথাও পোস্ট হবে না। কারণ এই চিঠিটা আমার অস্তিত্বের লড়াই এর প্রতিবেদন মাত্র। তুই যখন বড় হবি আমার প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের মধ্যে কোনো না কোনো সময় এই চিঠিটা খুঁজে পাবি। তোর ঔৎসুক মন যখন এই চিঠিটার মর্মকথা পড়ে মায়ের জন্য মন ব্যাকুল হবে তখনই আমার মাতৃত্বের আকুতি সার্থক হবে। হয়তো তোর দুচোখ থেকে দু-এক ফোঁটা অশ্রুও ঝরে পড়বে। আর সেটা তোর অলক্ষ্যে থেকেও আমি ঠিকই উপলব্ধি করতে পারব। সেটাই হবে আমার পরম পাওয়া।

ইতি -
মা।

bengali@pratilipi.com
080 41710149
সোশাল মিডিয়াতে আমাদের ফলো করুন
     

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সাথে কাজ করুন
গোপনীয়তা নীতি
পরিষেবার শর্ত
© 2017 Nasadiya Tech. Pvt. Ltd.