১৫ বছর পর

পনেরো বছর কেটে গেছে । ছেলেটি একটি বেসরকারি কোম্পানিতে সফটওয়্যার ইনজিনিয়ার । এখনও বিয়ে করেনি । বয়স ৩৫ তবে শরির এখনও ভেঙে যায়নি । অফিসের মেয়ে বন্ধুরা এখনও ওকে লাইন মারে । ছেলেটির নাম শান্তানু । পনেরো বছর আগের ঘটনা আর সেরকম ভাবে মনে পড়েনা । মা-বাবা সেই ছোট্ট বেলায় মারা গেছেন । এখন নিজের একটা ফ্ল্যাট আছে । খুব আনন্দের সাথেই দিন কাটছে । বোলপুরে শান্তি ছিল কিন্ত মন ভেঙে যাওয়ার পর সে কলকাতায় চলে আসে । তবে কলকাতায় আসার আরও একটা কারন ছিল । শিল্পার কলকাতায় বিয়ে হয়েছে । হ্যাঁ শিল্পাই হল শান্তানুর না পাওয়া ভালোবাসা । ভেবেছিল কলকাতায় এসে হয়তো একবার দেখা হবে । কিন্তু দুর্ভাগ্য বশত সেটা একবারও হয়নি । আর এখন সেটা না হওয়াই ভাল । হয়তো দুজন দুজনকে দেখলে চিনতেই পারবেনা বা হয়তো পারবে ।

অফিস টাইমে কলকাতার রাস্তায় বিশাল ভিড় হয় । আর এই গরমেও তা কমার কোনো লখ্খন নেই । শরীরটা সকাল থেকেই কেমন ম্যাজম্যাজ করছে । আজ শনিবার অফিসেও কাজের চাপ নেই । একদিন ডুব মারলেও খতি নেই । কিন্তু ঘরে থেকেও সে কি করবে । তাই তাড়াতাড়ি রেডি হয়ে অফিসের পথে বেরিয়ে পড়ল । ধর্মতলা এলাকাতে ফাস্টফুডের দোকান ভর্তি ।আর সব দামও কম । কিন্তু গরমের জন্য সে একটা লস্যির দোকানের দিকেই এগিয়ে গেল । এখানে সে প্রায়ই খায় । দোকানদার মুখ চেনা । তাই মাঝে মাঝে কুড়ি টাকায় দুটো বড় গ্লাস লস্যি সে খেয়ে নেয় । লস্যি খাওয়ার পর শান্তানু ভাবল আজ আর অফিস যাবনা । আজ একটু কলকাতাটা ঘুরব । সত্যি কথা বলতে এত বছর কলকাতায় থাকা সত্ত্বেও বাড়ি আর অফিস ছাড়া সে আর কোথাও যায়নি । তাই সে রাস্তার দিকে এগিয়ে গেলো একটা ট্যাক্সি ধরার জন্য ।

হঠাৎ শান্তানুর বুকটা ধরাস করে উঠল । রাস্তার ওপার দিয়ে একটি মেয়ে হেঁটে যাচ্ছে , এমুখ তার চেনা । সে রুদ্ধশ্বাসে ছুটে গেল মেয়েটির দিকে । কাছাকাছি আসতেই শান্তানু ডেকে উঠল শিল্পা । মেয়েটি হাঁটা থামিয়ে পিছনে ফিরে দেখল । শিল্পা হ্যাঁ শিল্পাই তো শান্তানু মনে মনে বলে উঠল । শিল্পার অবস্থাও শান্তানুর মত । সে হতবাক দৃষ্টিতে শান্তানুর দিকে চেয়ে থাকল । কিছুক্ষণ পর তারা সবকিছু ভুলে দুজন দুজনকে জড়িয়ে ধরল । এভাবে তারা কতখ্খন ছিল ঠিক নেই । দুজন দুজনের বাধন থেকে আলগা হওয়ার পর শিল্পা মাথা নিচু করে দাড়িয়ে থাকল । শান্তানু বলল কেমন আছিস ? শিল্পা মাথা নিচু করেই বলল ভাল আর তুই ? এই চলছে । তোর হাতে যদি সময় থাকে তাহলে চ কোথাও বসা যাক । তোর সাথে অনেক কথা আছে । শিল্পা মাথা নেড়ে সম্মতি জানাল । ওরা পাশেই একটা রেষ্টুরেন্টে ঢুকল । আর দুটো কোল্ডড্রিংক্সের অর্ডার দিল ।

শান্তানু বলল কি দিয়ে শুরু করব বুঝতে পারছিনা । শিল্পা বলল এটা তোর জন্মগত প্রবলেম । তুই ভিতু । সেদিন যদি সাহস করে আমাকে নিয়ে পালিয়ে যেতিস..............। শান্তানু বলল পনেরো বছর পরও তুই আমাকে ভালোবাসিস । ১৫ বছর ৪ মাস ২৮ দিন । শান্তানু স্তম্ভিত হয়ে গেল । শিল্পা বলল আমি সবসময় তোকে তোর থেকে বেশি ভালোবেসেছি । শান্তানু বলল তুই আমাকে ভাল করেই জানিস, পালিয়ে যাওয়া আমার পছন্দ নয় । নিজেকে সবসময় অপরাধী মনে হয় । তোর বরের কি খবর ? কটা বাচ্চা হল ? প্রশ্নটা শুনে শিল্পা যেন কেমন মুষড়ে পড়ল । তারপর ধীরে ধীরে বলল , বিয়ের দু মাস পরেই ও একটা কার এক্সিডেন্টে মারা যায় । ওর বাড়ির লোক আমাকে যা তা বলে তাড়িয়ে দিয়েছে । বোলপুরে চলে গিয়েছিলাম । কিন্তু কতদিন বাবা মায়ের উপর বোঝা হয়ে থাকব তাই একটা চাকরি খুজে কলকাতায় চলে এলাম । তোর বউয়ের কি খবর ? বউ ! আমিতো বিয়েই করিনি , শান্তানু বলল । আছিস কি করে ? কেন তোর কথা ভেবে । তুই না একটা পাগল, শিল্পা হেসে বলল । এরপর কি করবি ? শান্তানু বলল । কেন যেরকম চলছে সেরকম ভাবেই জিবন কাটিয়ে দেবো । শান্তানু বলল আমি কিন্তু অন্যকথা ভাবছি । কি কথা ? শান্তানু উঠে দাঁড়ালো তারপর শিল্পার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে শিল্পার হাত ধরে বলল আই ল্ভ ইউ । শিল্পা বলল কি করছিস উঠে দাড়া । তোকে দ্বিতীয় বার প্রোপোজ করলাম, এবারে তোকে আর হাত ছাড়া করবনা । দরকার পড়লে পালিয়েও যাবো । শিল্পা বলল এখন আর এসব করতে হবে না । বয়েসটা অনেক হয়েছে । শান্তানু বলল ভালোবাসা বয়স মানে না । আমি তোকে আজ এই মূহুর্তে বিয়ে করতে চাই। .........

আজ আকাশলোকে বিশাল বড় অনুষ্ঠান । সেখানে একটা নাটক পরিবেশন করবে দুজনে, তাই রিয়েসাল করছিল । নাটকের নাম ১৫ বছর পর । হ্যাঁ গল্পটা পনেরো বছর আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল । জোর করে বিয়ে দেওয়া হচ্ছিল শিল্পার । তাই বিয়ের দিন বীষ খায় শিল্পা । মালাবদলের আগেই জ্ঞান হারায়, তারপর হাসপাতালে মৃত্যু । শান্তানুকে অবশ্য হাসপাতালে যেতে হয়নি , ঘরেই গলায় দড়ি দিয়েছিল সে । জীবিত অবস্থায় দুজনে মিলতে পারেনি তাই মৃত্যুর পর মিললো ।........

bengali@pratilipi.com
080 41710149
সোশাল মিডিয়াতে আমাদের ফলো করুন
     

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সাথে কাজ করুন
গোপনীয়তা নীতি
পরিষেবার শর্ত
© 2017 Nasadiya Tech. Pvt. Ltd.