আমি তোমাকে পেয়েছি অজানা সাধনে


সারা বাড়ি গানের ভক্ত। রেডিওয়, নতুন আসা টেলিভিশনে কত গায়কের কত অনুষ্ঠান হয়। পুজোর সময় নতুন জামাকাপড়ের সঙ্গে আসত নামী গায়কদের সদ্য প্রকাশিত গানের ক্যাসেট। আরও আগে আসত লং প্লেয়িং অডিও রেকর্ডস।
কত গান, কত সুর। বাড়িতে সঙ্গীতের কত চর্চা। ঠাকুরদাদা, বাবা, কাকারা, দাদারা কত গানের রেওয়াজ করেন। তানপুরা, হারমোনিয়াম, এস্রাজের সুরে, তবলা, পাখোয়াজ, খোলের বোলবাণীতে সারাক্ষণ গমগম করে বাড়ি।
কিন্তু বাড়ির মেয়েরা তালিম নেবে না। একটা দুটো গান শেখো, যাতে বিয়ের স্বম্বন্ধ দেখতে আসা পাত্রপক্ষকে সন্তুষ্ট করে বিয়ে পাশ করে যেতে পারো। এর বেশি আর কি দরকার। মেয়েছেলে তো আর অল ইন্ডিয়া রেডিওতে গাইবে না।
অথচ, সেই বাড়ির মেয়ে হয়েও গান গাওয়ার প্রচন্ড শখ সেঁজুতির। রেডিও শুনে শুনে গান তোলে আর ঘরে কেউ না থাকলে লুকিয়ে লুকিয়ে গায়। একদিন বাবা হঠাৎ এসে পড়ে খুব বকেছিলেন।
স্কুল ফাইনাল পাস করে স্কটিশ কলেজে প্রি ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হল সেঁজুতি। হিউম্যানিটিজ নিয়ে। বাড়ির গাড়িতে যাওয়া, বাড়ির গাড়িতে আসা।
কলেজের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে নবাগতদের অংশগ্রহণ করার জন্য আহ্বান জানালেন ঘোষক। একটু ইতস্তত করে স্টেজে উঠে মাইকের সামনে দাঁড়িয়ে সেঁজুতি গাইতে শুরু করল,
" আমি তোমারি সঙ্গে
বেঁধেছি আমারি প্রাণ
সুরের বাঁধনে,
তুমি জানো না
আমি তোমাকে পেয়েছি
অজানা সাধনে... "
তার সুরের প্লাবনে সারা হল মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে গেল।
অনুষ্ঠান শেষে যেচে আলাপ করলেন আমন্ত্রিত বিশেষ অতিথি সম্ভাবনাময় তরুণ সঙ্গীতশিল্পী ইমনকল্যাণ সেনগুপ্ত। " সেঁজুতি দেবী, ইয়ে, মানে, একটা...কথা ছিল.."
পঁচিশতম বিবাহবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে আত্মীয়, বন্ধু এবং অজস্র অনুরাগীর সামনে স্বামী ও শ্রদ্ধেয় সহশিল্পী ইমনকল্যাণের সঙ্গে গানটা গাইতে গাইতে পুরোনো দিনগুলো চোখের সামনে ভাসছিল বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী সেঁজুতি সেনগুপ্তার। ওঁদের গানের সঙ্গে তবলাসঙ্গতে ছেলে বিভাস এবং কি বোর্ডে সেঁজুতির ভাইঝি পল্লবী। মেয়েদের সঙ্গীতসাধনা আজ আর ও বাড়িতে নিষিদ্ধ নয়।

bengali@pratilipi.com
+91 9374724060
সোশাল মিডিয়াতে আমাদের ফলো করুন
     

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সাথে কাজ করুন
গোপনীয়তা নীতি
পরিষেবার শর্ত
© 2017 Nasadiya Tech. Pvt. Ltd.